এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ । এসএসসি রেজাল্ট ২০২০

এসএসসি রেজাল্ট ২০২০, এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ২০২০: ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট কত তারিখে দিবে? ২০২০ সালের এসএসসি রেজাল্ট কিভাবে জানা যাবে? এই বিষয় গুলো নিয়েই আজকে লেখাপড়াবিডি ‍ওয়েবসাইটের এই পোস্টে আলোচনা করবো।

২০২০ সালের এসএসসি, দাখিল,ভোকেশনাল পরীক্ষা ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। ২০২০ সালের এসএসসি ,দাখিল, ভোকেশনাল পরীক্ষা গত ৩রা ফেব্রুয়ারী এক যোগে শুরু হয়। এবং গত ২৭ ফেব্রুয়ারী লিখিত পরীক্ষা শেষ হয়। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরপরই সকল শিক্ষার্থীদের আগ্রহ থাকে কখন রেজাল্ট দিবে এবং তা কিভাবে জানবো।

২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট কবে দেবে?

জানা গেছে, আগামী ৩১ মে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ফলাফল প্রকাশ করা হবে। বৃহস্পতিবার (২১ মে) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে প্রেরিত এক পত্রের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মধ্যে চলতি মে মাসের শেষের দিকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের প্রস্তুতি গ্রহণ করে নিচ্ছে বোর্ডগুলো। এ লক্ষ্যে দেশের সব পরীক্ষকের কাছে জমা থাকা পরীক্ষার উত্তরপত্র ১০ মে’র মধ্যে স্থানীয় পোস্ট অফিসের মাধ্যমে বোর্ড অফিসে পাঠাতে নির্দেশনা দেয়া হয়। এর আগে ২০২৯ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ৬ মে ২০২৯ তারিখে দুপুর ১২ টায় প্রকাশিত হয়েছিল। তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মাথায় গত কয়েক বছর থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে আসছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু এবারের করোনা ভাইরাস পৃষতীটির কারণে তা সম্ভব হচ্ছেনা। 

এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ যেভাবে জানবেনঃ

এস এস সি পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ অনলাইনে লেখাপড়া বিডি থেকেও জানা যাবে। এছাড়া ২০২০ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ও একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি সংক্রান্ত সর্বশেষ সব তথ্য জানতে নিয়মিত চোখ রাখুন লেখাপড়া বিডি‘তে।

অনলাইনে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এখানেঃ

এসএসসি রেজাল্ট ২০২০

 
রেজিস্ট্রেশন নম্বর ছাড়া ফলাফল ফলাফল জানতে ক্লিক করুন

বিভিন্ন বোর্ডের গ্রেডশীটসহ এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল জানা যাবে নিচের লিংকগুলো থেকেঃ

বরিশাল বোর্ডের ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

চট্টগ্রাম বোর্ডের ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

ঢাকা বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

যশোর বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

বরিশাল বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

কুমিল্লা বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

রাজশাহী বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

সিলেট বোর্ডের গ্রেডশীটসহ ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

দিনাজপুর বোর্ডের ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

মাদ্রাসা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

টেকনিক্যাল বোর্ডের এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষার ফলাফল ২০২০ পাওয়া যাবে এই লিংকে

মোবাইল এসএমএস এর মাধমে এস এস সি ফলাফল ২০২০ জানা যাবে যেভাবেঃ

SMS এর মাধ্যমে ফলাফল পাওয়ার পদ্ধতিঃ
SSC<Space>আপনার বোর্ড এর নামের প্রথম ৩ অক্ষর<Space>রোল নম্বর<Space>পাশের বছর

এরপর পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

উদাহরণঃ
SSC RAJ 123456 2020 পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

SMS পদ্ধতি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের জন্যঃ
Dakhil<Space>আপনার বোর্ড এর নামের প্রথম ৩ অক্ষর<Space>রোল নম্বর<Space>পাশের বছর

এরপর পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

উদাহরণঃ
Dakhil MAD 123456 2020 পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

এসএসসি ভোকেশনালের জন্যঃ
SSC<Space>আপনার বোর্ড এর নামের প্রথম ৩ অক্ষর<Space>রোল নম্বর<Space>পাশের বছর

পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

উদাহরণঃ
SSC Tec 123456 2020 পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

চলুন জেনে নেওয়া যাক বিগত কয়েক বছর এর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলের পরিসংখ্যান…

২০১৯ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলের পরিসংখ্যানঃ

এক নজরে ফলাফল

বোর্ড

পাশের হার (%)

জিপিএ-৫ (জন)

পাসের হার (%)

পাসের হার (%)

 

২০১৯

২০১৮

২০১৭

ঢাকা

৭৯.৬২

২৯৬৮৭

৮১.৪৮

৮৬.৩৯

রাজশাহী

৯১.৬৪

২২২৯৫

৮৬.০৭

৯০.৭০

কুমিল্লা

৮৭.১৬

৮৭৬৪

৮০.৪০

৫৯.০৩

যশোর

৯০.৮৮

৯৯৪৮

৭৬.৬৪

৮০.০৪

চট্টগ্রাম

৭৮.১১

৭৩৯৩

৭৫.৫০

৮৩.৯৯

বরিশাল

৭৭.৪১

৪১৮৯

৭৭.৭১

৭৭.২৪

সিলেট

৭০.৮৩

২৭৫৭

৭০.৪২

৮০.২৬

দিনাজপুর

৮৪.১০

৯০২৩

৭৭.৬২

৮৩.৯৮

মাদ্রাসা

৮৩.০৩

৬২৮৭

৭০.৮৯

৭৬.২০

কারিগরি

৭২.২৪

৪৭৫১

৭১.৯৬

৭৮.৬৯

মোট

৮২.২০

১০৫৫৯৪

৭৭.৭৭

৮০.৩৫

 

এবার এসএসসি-সমমান পরীক্ষায় সারাদেশে ১০টি বোর্ডের অধীনে ৩ হাজার ৫১২টি কেন্দ্রে মোট ২০ লাখ ২৮ হাজার ৮৮৪ পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। ২০১৯ সালে ৮ টি শিক্ষাবোর্ডের পাসের হার ৮২ দশমিক  ৮০  শতাংশ। জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৯৪ হাজার ৫৫৬  জন। গতবারের তুলনায় এ বছর পাসের হার  বেড়েছে ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ। 

পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ও  পাসের হারে  মেয়েরা এগিয়ে রয়েছে। ছাত্রের তুলনায় ১ দশমিক ৫৩ শতাংশ ছাত্রী বেশি পাস করেছে। ছাত্রের তুলনায় ৫২ হাজার ৬৯২ জন ছাত্রী বেশি অংশগ্রহণ করে এবং ৫৬ হাজার ৬৩৩ ছাত্রী বেশি পাস করেছে। 

গতবার সারাদেশে ২০ লাখ ২৬ হাজার ৫৭৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে পাস করে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৪ শিক্ষার্থী, যা গড়ে ৭৭.৭৭ শতাংশ। এরমধ্যে ছাত্রদের পাসের হার ৭৬.৭১ শতাংশ, আর ছাত্রীর পাসের হার ৭৮.৮৫ শতাংশ। ২০১৮ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ শিক্ষার্থী। এরমধ্যে ৫৫ হাজার ৭০১ জন ছাত্র, আর ৫৪ হাজার ৯২৮ জন ছাত্রী। ২০১৭ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৪ হাজার ৭৬১ জন।

মাদ্রাসা বোর্ডে ২০১৮ সালে অংশ নেয় ২ লাখ ৮৬ হাজার ২০৬ শিক্ষার্থী। এরমধ্যে পাসের হার ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এ বোর্ডে জিপিএ-৫ পায় ৩ হাজার ৩৭১ জন। কারিগরি বোর্ডে সেবার পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১৫ হাজার ২৩৪ জন। এরমধ্যে পাস করে ৮২ হাজার ৯১৭ জন, যা গড়ে ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। এ বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ৪ হাজার ৪১৩ শিক্ষার্থী।

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় ২০১৭ সালে পাসের হার ছিলো ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ যা ২০১৬ সাল এর তুলনায় ৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ কম। ২০১৭ সালে জিপিএ ফাইভ পেয়েছিলো ১ লাখ ৪ হাজার ৭’শ ৬১ জন।

২০১৭ সালে উক্ত পরীক্ষায় ২৮ হাজার ৩৪৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তিন হাজার ২৩৬টি কেন্দ্রে ১৭ লাখ ৮৬ হাজার ৬১৩ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্র সংখ্যা নয় লাখ ১০ হাজার ৫০১ জন এবং ছাত্রী আট লাখ ৭৬ হাজার ১১২ জন।

আটটি সাধারণ বোর্ডে এসএসসিতে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১৪ লাখ ২৫ হাজার ৯০০ জন। এরমধ্যে ছাত্র সাত লাখ দুই হাজার ২৯৯ জন এবং ছাত্রীর সংখ্যা ছিলো সাত লাখ ২৩ হাজার ৬০১ জন।

মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিল পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ছিলো দুই লাখ ৫৬ হাজার ৫০১ জন এবং কারিগরি বোর্ডের অধীনে এসএসসি (ভোকেশনাল) এক লাখ চার হাজার ২১২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন।

৮টি সাধারণ বোর্ড, মাদ্রাসা, কারিগরি বোর্ডের মিলিত ফলাফল

সব মিলিয়ে ১০ বোর্ডে মিলিতভাবে ২০১৭ সালে পরীক্ষার্থী ছিল ১৭ লাখ ৮১ হাজার ৯৬২ জন। যার মধ্যে পাস করে ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৭২২ জন। ২০১৭ সালে ১০ বোর্ডে পাসের হার ছিলো ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ। ২০১৬ সালে পাশের হার ছিলো ৮৮ দশমিক ২৩ শতাংশ। ২০১৭ সালে ৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ কম পাস করে।

২০১৭ সালে সব বোর্ড মিলিয়ে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ১ লাখ ৪ হাজার ৭৬১ জন। ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ১ লাখ ৯ হাজার ৭৬১ জন। জিপিএ-৫ বা এ-প্লাস কমেছিলো ৫ হাজার।

৮টি সাধারণ বোর্ড বা এসএসসির ফলাফল

৮টি সাধারণ বোর্ড বা এসএসসিতে ২০১৭ সালে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১৪ লাখ ২২ হাজার ৩৮৯ জন পরীক্ষার্থী। যার মধ্যে পাস করে ১১ লাখ ৫৫ হাজার ৬৮ জন। গড় পাস ৮১ দশমিক ২১ শতাংশ। ২০১৬ সালে পাসের হার ছিল ৮৮ দশমিক ৭০ শতাংশ। ২০১৭ সালে পাসের হার কমে ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

২০১৭ সালে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পায় ৯৭ হাজার ৯৬৪ জন। ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ৯৬ হাজার ৭৬৯ জন।

মাদ্রাসা/দাখিল বোর্ডের ফল

মাদরাসা বোর্ডে অধীনে দাখিল পরীক্ষায় এবার পাসের হার ৮৩ দশমিক ০৩ শতাংশ। গত বছর ছিল ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ। পাসের হার বেড়েছে ১২ দশমিক ১৪ শতাংশ।

২০১৭ সালে দাখিলে পরীক্ষার্থী ছিলো ২ লাখ ৫৩ হাজার ৩৪৪ জন। যার মধ্যে পাস করে ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫১ জন। পাসের হার ছিলো ৭৬ দশমিক ২০ শতাংশ। ২০১৬ সালে পাসের হার ছিলো ৮৮ দশমিক ২২ শতাংশ। ২০১৭ সালে পাসের হার কমে ১২ দশমিক ০২ শতাংশ।

২০১৭ সালে দাখিলে জিপিএ-৫ পায় ২ হাজার ৬১০ জন। ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ৫ হাজার ৮৯৫ জন। ২০১৭ সালে জিপিএ-৫ পায় ৩ হাজার ২৮৫ জন।

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ফল

কারিগরিতে এবার পাসের হার ৭২ দশমিক ২৪ শতাংশ। গত বছর ছিল ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। পাসের হার বেড়েছে শূন্য দশমিক ২৮ শতাংশ। জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ৪ হাজার ৭৫১ জন।

২০১৭ সালে কারিগরিতে পরীক্ষার্থী ছিলো ১ লাখ ৬ হাজার ২৩৯ জন। যার মধ্যে পাস করে ৮৩ হাজার ৬০৩ জন। ২০১৭ সালে পাসের হার ছিলো ৭৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ। ২০১৬ সালে পাসের হার ছিলো ৮৩ দশমিক ১১ শতাংশ। ২০১৭ সালে পাসের হার কমেছিলো ৪ দশমিক ৪২ শতাংশ।

কারিগরিতে ২০১৭ সালে জিপিএ-৫ পায় ৪ হাজার ১৮৭ জন। ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ৭ হাজার ৯৭ জন। ২০১৭ সালে জিপিএ-৫ কম পেয়েছিলো ২ হাজার ৯১০ জন।

২০১৭ সালে ২ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। তাত্ত্বিক বা লিখিত পরীক্ষা শেষ হয় ২ মার্চ। ব্যবহারিক পরীক্ষা ৪ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হয় ১১ মার্চ।

২০১৬ সালের এসএসসি সমমান পরীক্ষার ফলাফলের পরিসংখ্যানঃ

গতবার  মাধ্যমিক (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় ২০১৬ সালে গড় পাসের হার ছিলো ৮৮ দশমিক ২৯ শতাংশ। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ১ লাখ ৯ হাজার ৭৬১ জন। ২০১৫ সালে মোট জিপিএ ৫ পেয়েছিল ১ লাখ ১১ হাজার ৯০১ জন। ২০১৫ সালের চেয়ে ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ দুই হাজার ১৪০ জন কম পায়।

২০১৬ সালে সারাদেশে এসএসসিতে পাসের হার ছিলো ৮৮.৭০ শতাংশ, মাদরাসা ৮৮.২২ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ছিলো  ৮৩.১১ শতাংশ।

  • এসএসসি তে আশানুরুপ ফলাফল না পেয়ে হতাশ? ফলাফল পুনঃমূল্যায়ন এর প্রক্রিয়া জেনে নিন এই লিঙ্ক থেকে
  • একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালাসহ প্রয়োজনীয় সকল তথ্য জেনে নিন এই লিঙ্ক থেকে
  • এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল জানতে এখানে ক্লিক করুন

পোষ্টটি লিখেছেন: আল মামুন মুন্না

আল মামুন মুন্না এই ব্লগে 651 টি পোষ্ট লিখেছেন .

আল মামুন মুন্না, বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা বিষয়ক বাংলা কমিউনিটি ব্লগ সাইট "লেখাপড়া বিডি"র প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক হিসেবে নিয়োজিত আছেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন যশোর সরকারী এম. এম. কলেজ থেকে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিষয় নিয়ে বি.বি.এ অনার্স ও আজম খান সরকারী কমার্স কলেজ থেকে এমবিএ সম্পন্ন করেছেন।

আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন পেইজে লাইক দিন গ্রুপে যোগ দিন


16 comments

  1. Atik hasan joy

    ফলাফল ত ১১ তারিখে দেয়ার কথা ছিল

  2. শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইট এ দিন খুব ব্যস্ত থাকে

  3. আগে জানার উপায় কি

  4. অর্নাস 2014-2015 শিক্ষাবর্ষের 1ম বর্ষের রেজাল্ট দিবে কবে

  5. Education Board Results

    sms ছাড়া কোন গতি নেই। কারণ শিক্ষা বোর্ডের সার্ভাবের যে অবস্থা তাতে রাতের আগে কেউ রেজাল্ট দেখতে পারবে বলে মনে হয় না।

  6. Education Board Results

    সিলেট বোর্ডের ফলাফল দেখুন

  7. Rased Bin Jafar

    আমি আমার স্কুল বা মাদ্রাসার ( EIIN-কোড ) কিভাবে সংগ্রহ করব

  8. SSC result by SMS

    এসএমএস পদ্ধতিতেও জানা যাবে।

  9. Labiba Afrin/Online Shopping Bangladesh

    এবার অনেক কড়াকড়ি হয়েছে । আরও কড়াকড়ি হওয়া উচিৎ ।

  10. এবার এসএসসি রেজাল্ট কবে দিবে?

  11. 29/04/18 এর আগে কি পাসের হা জানতে পারবো

  12. আপনাকে অনেক ধন্যবাদ,গুরুপ্তপূর্ণ তথ্য শেয়ার করার জন্য। অনেক উপকৃত হলাম।
    Thanks…

  13. Thanks for your informative post. By following your post I can found the result easily.

  14. ধন্যবাদ আপনাকে, গুরুপ্তপূর্ণ Post শেয়ার করার জন্য। 🙂

  15. 2019 এর রেজাল্ট কবে দিবে ভাই?

  16. লেখাপড়াবিডি বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ছাত্র এবং চাকুরি প্রত্যাশিগণ বিশেষভাবে উপকৃত হবে ইনশাল্লাহ। তাই এই ওয়েবসাইটটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ওয়েবসাইট বলেই আমি মনে করি। এই ওয়েবসাইটের কর্তৃপক্ষ আল্লাহ রহমত বর্ষণ করুন। আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *