৬ মাসের ডিপ্লোমাধারী আইসিটি শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির নির্দেশ

ছয় মাসের ডিপ্লোমাধারী ৩৪৪ জন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের সহকারী শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। রোববার (২৬ জুলাই) মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে  এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালে প্রকাশিত গণবিজ্ঞপ্তি অনুসারে প্রথম নিয়োগ চক্রে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদে যোগ দিয়ে নিয়মিত পাঠদান করেও এমপিওভুক্ত হতে পারছিলেন না অনেক শিক্ষক। প্রথম নিয়োগ চক্রে এনটিআরসিএর সুপারিশকৃত শিক্ষকরা বিভিন্ন স্কুল ও মাদরাসায় যোগদান করলেও এ জটিলতায় পরেছিলেন। তাদের এমপিওভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

তবে, অন্য মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা আদেশে বলা হয়েছে, ৬ মাসের ডিপ্লোমায় এনটিআরসিএর নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত সুপারিশ পাওয়া প্রার্থীরা এমপিওভুক্ত হতে পারবেন। শুধু মাত্র ২০১৯ সালের ১০ জানুয়ারি ও ৩৮ মে সুপারিশ পাওয়া প্রার্থীদের এমপিওভুক্তির ক্ষেত্রে এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো প্রযোজ্য হবে না। তারা বকেয়া পাবেন না। তবে, তাদের এমপিওর আবেদনের তারিখ থেকে এমপিও কার্যকর হবে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে প্রকাশিত গণবিজ্ঞপ্তি অনুসারে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদে যোগ দিয়ে নিয়মিত পাঠদান করা ৩৪৪ জন শিক্ষকের এমপিওভুক্তির জটিলতা নিরসনে গত ১৮ এপ্রিল অধিদপ্তরগুলোতে চিঠি পাঠায় বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ থেকে মামলার রায়ের কপিসহ চিঠি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর এবং কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছিল।

২০১৬ সালে প্রকাশিত শিক্ষক নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলেও মামলার কারণে নিয়োগ সুপারিশ কার্যক্রম যথাসময়ে সম্পন্ন করা হয়নি। মামলা সম্পন্ন হয়ে গেলে রায়ের আলোকে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামো নির্দেশিকা মোতাবেক ফল চূড়ান্ত করা হয়। মামলার রায় অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রে স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি বা সমমান এবং সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান থেকে কম্পিউটার বিষয়ে ন্যূনতম ৬ মাসের প্রশিক্ষণ গ্রহণযোগ্য হওয়ায় কম্পিউটার বিষয়ে ৬ মাস মেয়াদী প্রশিক্ষণধারীরাও নিয়োগের জন্য সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন। এ মামলার রায় অনুযায়ী ব্যবস্থা কেবলমাত্র ২০১৬ সালের প্রার্থীদের বেলায় প্রযোজ্য হবে, তার পরবর্তীদের বেলায় নয়। মামলার রায়ের শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রেক্ষিতে ২০১৬ সালে সুপারিশপ্রাপ্ত প্রার্থীদের বেলায় ৬ মাসের প্রশিক্ষণের পূর্বের নীতি অনুসরণ করার জন্য অর্থাৎ মামলার রায়ের মতে কার্যক্রম গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করেছে এনটিআরসিএ। (ppbd.com হতে নেয়া সংবাদ)

পোষ্টটি লিখেছেন: Mohammad Khalilur Qaderi

Mohammad Khalilur Qaderi এই ব্লগে 13 টি পোষ্ট লিখেছেন .

মুহাম্মদ খলিলুর কাদেরী গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন, সে এখন জতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর অন্তর্ভূক্ত ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজ, গাজীপুর। হতে অনার্স (বাংলা বিভাগ) এ অধ্যায়নরত আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *