যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ‘এ, বি, সি, ডি, ই’ এবং এফ ইউনিটেরই ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। শুক্রবার (২৩ নভেম্বর) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন ইউনিটের ফলাফল প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত ফলাফল নিচে দেওয়া হলোঃ

ফলাফল ডাউনলোড করুন

 ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে যবিপ্রবিতে এ ইউনিটে পাস করেন তিন হাজার ৮৭ জন। এ ইউনিটে পাশের হার ৩১ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

বি ইউনিটে পাস করেন তিন হাজার ১০ জন। বি ইউনিটে পাসের হার ৩৪ দশমিক ৪০ শতাংশ।

সি ইউনিটে পাস করেন চার হাজার ৭ জন।সি ইউনিটে পাসের হার ৪৮ দশমিক ০৮ শতাংশ।

ডি ইউনিটে পাস করেন এক হাজার ৩২১ জন। ডি ইউনিটে পাসের হার ৪৮ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

ই ইউনিটে পাস করেন ২৯৪ জন। ই ইউনিটে পাশের হার ৬৩ দশমিক ০৯ শতাংশ। ৩০টি আসনের মধ্যে ১৫টি আসন জাতীয় দল ও জাতীয় পর্যায়ে পদকপ্রাপ্ত খেলোয়াড় দ্বারা পূরণ করা হবে। বাকি ১৫টি আসন মেধা তালিকা থেকে পূরণ করা হবে। তবে খেলোয়াড় কোটার ১৫টি আসন পূরণ না হলে তা মেধা তালিকা থেকে পূরণ করা হবে।

এফ ইউনিটে পাস করেন ৬৩৬ জন। তাদের মধ্যে ব্যবসায় শিক্ষা শাখা হতে ৪৭৭ জন, বিজ্ঞান শাখা হতে ১২০ জন এবং মানবিক শাখা হতে ৩৯ জন পাস করেন। এফ ইউনিটে পাসের হার ৪০ দশমিক ৫৬ শতাংশ। এ বছর ৯১৫ আসনের বিপরীতে ৪৪ হাজার ২০৬ জন আবেদন করেছেন। তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ৩১ হাজার ৮৮৪ জন পরীক্ষার্থী।

এ বছর ছয়টি ইউনিটে সাতটি অনুষদের অধীনে ২৪টি বিভাগে মোট ৮৭৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবেন। এ আসনগুলো ছাড়াও মোট আসনে মুক্তিযোদ্ধা কোটা, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, প্রতিবন্ধী এবং যবিপ্রবিতে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/ কর্মচারীদের সন্তানদের জন্য পোষ্য কোটা সংরক্ষিত থাকবে।

এর আগে ২২ ও ২৩ নভেম্বর ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে  www.just.edu.bd পাওয়া যাবে। এছাড়া, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাক্ষাৎকারের তারিখ ঘোষণা করা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের পাশাপাশি লেখাপড়া বিডি থেকেও জানা যাবে।

পোষ্টটি লিখেছেন: আল মামুন মুন্না

আল মামুন মুন্না এই ব্লগে 589 টি পোষ্ট লিখেছেন .

আল মামুন মুন্না, বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা বিষয়ক বাংলা কমিউনিটি ব্লগ সাইট "লেখাপড়া বিডি"র প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক হিসেবে নিয়োজিত আছেন। সম্প্রতি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন যশোর সরকারী এম. এম. কলেজ থেকে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিষয় নিয়ে বি.বি.এ অনার্স সম্পন্ন করে আজম খান সরকারী কমার্স কলেজে এমবিএ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *