নর্দান ইউনিভার্সিটিতে “সত্য-মিথ্যা নির্ধারণে মানুষের জবানবন্দির বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

গতকাল নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের আইন অনুষদের উদ্যোগে “সত্য-মিথ্যা নির্ধারণে মানুষের জবানবন্দির বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সেমিনারে অনুষদের ডীন অধ্যাপক আবু জায়েদ মোহাম্মদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়র ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যন অধ্যাপক ড. আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন এবং উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল করিম।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ পুলিশ বিশেষ শাখার ডি.আই.জি জনাব মোঃ তওফিক মাহবুব চৌধুরী। মূল প্রবন্ধে প্রবন্ধকার বলেন, ঘটনা অনুসন্ধান বা তদন্তকালে বেশীরভাগ লোকই সত্য কথা বলে না বা বলতে চায় না। অনেক সময় লোকে নানা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করে। তবে সত্য উদ্ধসঢ়;ঘাটন করতে ‘জবানবন্দি বিশ্লেষণ’ -এর মতো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি ব্যবহার করলে খুব সহজে সত্য বের করা সম্ভব। অনুসন্ধান বা তদন্তের এই মৌলিক হাতিয়ার আমাদেরকে সত্য তথ্য বের করতে, অতিরিক্ত তথ্য পেতে ও গোপন তথ্য আবিষ্কারে সাহায্য করে। এছাড়া এই হাতিয়ার অনেক ঘটনায় আমাদেরকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে সাহায্য করে।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে জবানবন্দি বিশ্লেষণের পদ্ধতির ব্যবহার পুলিশ প্রশাসনের বাইরেও আইনজীবী, বিচারক, প্রশাসক তথা সাংগঠনিক ব্যবস্থাপনার সর্বক্ষেত্রে এর উপযোগিতা রয়েছে বলে অভিমত পোষণ করেন।

আইন অনুষদের সম্মানীত ডীন অধ্যাপক আবু জায়েদ মোহাম্মদ বলেন, আইনের ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের পেশাগত জীবনে দক্ষতার সাথে কর্মসম্পাদনের জন্য এ ধরণের সেমিনার থেকে বিশেষ লাভবান হতে পারে। এরপর তিনি সবাইকে ধন্যবাদ দিয়ে সেমিনারের সমাপ্তি টানেন।

পোষ্টটি লিখেছেন: লেখাপড়া বিডি ডেস্ক

লেখাপড়া বিডি ডেস্ক এই ব্লগে 985 টি পোষ্ট লিখেছেন .

লেখাপড়া বিডি বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা বিষয়ক বাংলা কমিউনিটি ব্লগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *