পরীক্ষার আবিষ্কারক কে জেনে নিন (আব্দুস সামাদ আফিদী নাহিদ)

পরীক্ষা শব্দটা এমন, যেটা শুনলে বর্তমান অথবা অতীত সকল প্রজন্মই আঁতকে ওঠে। ওঠাটাই স্বাভাবিক, কারণ আমাদের আরামপ্রিয় মস্তিষ্ক এত চাপ নিতে চায় না।

পরীক্ষার পড়ার জন্য রাতগুলো যখন নির্ঘুম কাটে তখন নিশ্চয় একবার হলেও মাথায় আসে কে আবিষ্কার করেছিল এই পরীক্ষা?

হেনরি এ ফিশেল।

জি, তিনিই পরীক্ষার আবিষ্কারক।

১৯১৩ সালে জার্মানির বন নামক স্থানে ২০ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন হেনরি।

হেনরি বাবা অ্যাডলফ ফিশেল এবং মা নি সুসেনগাট।

জন্মস্থানেই সেকেন্ডারি স্কুল শেষ করে তিনি ইউনিভার্সিটি অব বার্লিন থেকে ফিলোসফি নিয়ে পড়াশোনা করেন।

পোষ্টটি লিখেছেন: আব্দুস সামাদ আফিন্দী নাহিদ

আব্দুস সামাদ আফিন্দী নাহিদ এই ব্লগে 28 টি পোষ্ট লিখেছেন .

বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা বিষয়ক বাংলা কমিউনিটি ব্লগ সাইট "লেখাপড়া বিডি"র নিয়মিত পাঠক ও লেখক হিসেবে ২০১৮ সাল থেকে নিয়োজিত আছেন। বর্তমানে জামালগঞ্জ সরকারি কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে লেখাপড়া করছেন। তিনি সবুজ বিডি ও স্বদেশ নিউজ দুইটি অনলাইন পত্রিকায় সাংবাদিকতায় নিয়োজিত আছেন।

About আব্দুস সামাদ আফিন্দী নাহিদ

বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা বিষয়ক বাংলা কমিউনিটি ব্লগ সাইট "লেখাপড়া বিডি"র নিয়মিত পাঠক ও লেখক হিসেবে ২০১৮ সাল থেকে নিয়োজিত আছেন। বর্তমানে জামালগঞ্জ সরকারি কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে লেখাপড়া করছেন। তিনি সবুজ বিডি ও স্বদেশ নিউজ দুইটি অনলাইন পত্রিকায় সাংবাদিকতায় নিয়োজিত আছেন।

Check Also

নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ও জিআইপিএস এর মধ্যে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত

নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ও গিরিজানান্দা চৌধুরী ইনিস্টিটিউট অব ফার্মাসিটিক্যাল সাইন্স (জিআইপিএস), ইন্ডিয়া এর মধ্যে সমঝোতা …

One comment

  1. আল মামুন মুন্না

    পরীক্ষার আবিষ্কারকের নাম নিয়ে বেশ বিতর্ক আছে। ইন্টারনেট ঘেঁটে যেসব তথ্য পেলাম সেগুলো দেখলে মনে হয়না এই ভদ্রলোক পরীক্ষা পদ্ধতির জনক। “প্রাচীন চীন বিশ্বের সর্বপ্রথম দেশ যারা দেশব্যাপী স্ট্যান্ডারাইজড টেস্ট প্রবর্তিত করেছিলো, যাকে বলা হয় সার্বভৌম পরীক্ষা। এই পরীক্ষার মূল উদ্দেশ্য ছিলো সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বের জন্য যোগ্য লোককে খুঁজে বের করা। ৬০৫ সালে সুই ডাইনেস্টির দ্বারা এই পদ্ধতি কার্যকর করা হয়েছিলো। পরে ১৯০৫ সালে কুইং ডাইনেস্টি এই পদ্ধতি বিলুপ্ত করে দেয়। ইংল্যান্ড চীনের এই পরীক্ষা পদ্ধতি অনুসরণ শুরু করে ১৮০৬ সালে তাদের সিভিল সার্ভিসের জন্যে। এই পরীক্ষা পদ্ধতিটাই পরে শিক্ষা ব্যবস্থার উপর প্রয়োগ করা হয় এবং এই পদ্ধতি গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে জনপ্রিয়তা পায় এবং ছড়িয়ে যায় পরীক্ষা পদ্ধতি। এভাবেই ছাত্রছাত্রীদের জন্য পরীক্ষা নেয়ার ধারণাটি সৃষ্টি হয়।”

    এখানেঃ http://www.hoaxorfact.com/history/american-henry-fischel-the-first-person-to-invent-exams-facts.html

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *