আর্থিক লেনদেনের চুক্তিপত্র

আর্থিক লেনদেনের চুক্তিপত্র, দলিল বা ডকুমেন্টস থাকলে কেউ প্রতারণা করার সাহস পাবে না। প্রত্যেকের মনে রাখা দরকার, অর্থই অনর্থের মূল। এই অর্থের কারণেই বন্ধু, আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হয়। অনেক সময় সামান্য টাকার জন্য খুনোখুনির ঘটনাও আমাদের দেশে চোখে পড়ে। কাজেই এখন থেকে প্রতিটি আর্থিক লেনদেনই লিখিত চুক্তির মাধ্যমে হওয়া উচিত।

লেনদেনের লিখিত চুক্তি বা দলিল থাকলে এভাবে কাউকে প্রতারিত হতে হয় না। টাকা-পয়সা লেনদেন করলে বা বাকিতে মাল বিক্রি করলে তা লিখিত দলিলে হওয়া উচিত। তাহলে প্রতারিত হলেও আইনের আশ্রয় নেওয়া যায়। এভাবে টাকা নিয়ে তা আত্দসাৎ করলে বাংলাদেশে প্রচলিত দণ্ডবিধির ৪২০ ধারা ও ৪০৬ ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া যায় সহজেই। আদালতে অভিযোগ প্রমাণ করাও সহজ হয়। টাকা ধার নিয়ে বা বাকিতে মাল নিয়ে টাকা পরিশোধ না করা প্রতারণা। আর এই প্রতারণার শাস্তির বিধান রয়েছে দণ্ডবিধির ৪২০ ধারায়। এ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি প্রতারণা করে এবং প্রতারণার কারণে প্রতারিত ব্যক্তিকে কোনো সম্পত্তি দিতে বাধ্য করে তাহলে প্রতারণাকারীকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, জরিমানা বা উভয় প্রকার দণ্ড দেওয়া যেতে পারে।

দণ্ডবিধির ৪০৬ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি বিশ্বাস ভঙ্গ করে তাহলে তাকে তিন বছর কারাদণ্ড দেওয়া যাবে। অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত করা যাবে বা উভয় দণ্ড দেওয়া যাবে। লেনদেনের দলিল বা ডকুমেন্টস থাকলে কেউ প্রতারণা করার সাহস পাবে না।

প্রত্যেকের মনে রাখা দরকার, অর্থই অনর্থের মূল। এই অর্থের কারণেই বন্ধু, আত্দীয়স্বজনের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হয়। অনেক সময় সামান্য টাকার জন্য খুনোখুনির ঘটনাও আমাদের দেশে চোখে পড়ে। কাজেই এখন থেকে প্রতিটি আর্থিক লেনদেনই লিখিত চুক্তির মাধ্যমে হওয়া উচিত। এই চুক্তিনামা হতে পারে ১৫০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্টাম্পে। আবার কোনো সাদা কাগজে হলেও চলে। তবে লেনদেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি বা উভয় পক্ষের আত্দীয়স্বজনের উপস্থিতিতে হলে ভালো হয়। লিখিত চুক্তিনামায় উপস্থিত ব্যক্তিদের স্বাক্ষর নেওয়া বাঞ্ছনীয়।

নতুন বিকাশ এপ ইন্সটল করলেই পাচ্ছেন ১০০ টাকা বোনাস। বিকাশ এপ ইন্সটল করুন
নিজ এলাকায় পছন্দের চাকরি খুঁজে পেতে গুগল পরিচালিত কর্ম এপ ইন্সটল করুন

Mohammad Khalilur Qaderi

পোষ্টটি লিখেছেন: Mohammad Khalilur Qaderi

Mohammad Khalilur Qaderi এই ব্লগে 14 টি পোষ্ট লিখেছেন .

মুহাম্মদ খলিলুর কাদেরী গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন, সে এখন জতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর অন্তর্ভূক্ত ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজ, গাজীপুর। হতে অনার্স (বাংলা বিভাগ) এ অধ্যায়নরত আছেন।


আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন পেইজে লাইক দিন গ্রুপে যোগ দিন

3 comments

  1. একটা প্রয়োজনীয় পোষ্ট । ধনবাদ ।

  2. দরকারী তথ্য। অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

  3. I Need job

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *