Software Engineering হতে পারে আপনার প্রথম পছন্দ !

আসসালামু আলাইকুম । আশা করি সবাই আল্লাহর অশেষ রহমতে ভাল আছেন । যারা যারা এবার উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে চাচ্ছেন তাদের এই টিউনটি কাজে আসতে পারে ।

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পর বাংলাদেশে দুটি বেসরকারি ইউনিভার্সিটিতে Software Engineering  এ B.Sc করার সুযোগ রয়েছে ।

তার মধ্যে একটি হচ্ছে,

১। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (DIU) ।

www.daffodilvarsity.edu.bd

অন্যটি,

২।আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (AIUB) .

www.aiub.edu

 

দুটা ইউনিভার্সিটিই বাংলাদেশের ভাল ইউনিভার্সিটি নিঃসন্দেহে । AIUB  অনেক আগের থেকেই ভাল । সাম্প্রতিক সময়ে  DIU ও বেশ ভাল করছে । তাদের শিক্ষার্থীরা কর্মক্ষেত্রে ভালো ভালো অবদান রাখতে পারছে । এছাড়া ইন্টারন্যাশনালিও বেশ সুনাম কুড়িয়েছে । আপনারা দুটা ইউনিভার্সিটির যেকোন একটিতে software Engineering  করলে ঠকবেন না , এটুকু বলতে পারি ।

দুটা ইউনিভার্সিটির Software Engineering এর সিলেবাসে কিছু ভিন্নতা রয়েছে । তবে কি কি বিষয় Software Engineering এ পড়ানো হয় কমনলি সেটা এখন আপনাদের তুলে ধরব ।

 

১। Computer Fundamentals.

২। Introduction to Software Engineering

৩। Software Requirement Analysis & Design.

৪। Software Project Management.

৫। Data Structure.

৬। Computer Algorithm.

৭। Software Testing & Quality Assurance .

৮। Programming C, Java, .net.

৯। Introduction to  Database.

১০। Operating System

১১। Documentation of Software Engineering.

১২। System analysis & Design.

১৩। System Security.

১৪। Desktop & web programming .

১৫। Software Engineering & Cyber laws.

 

এছাড়া ইউনিভার্সিটি ভেদে আরো কিছু কোর্স অফার করা হয়ে থাকে চার বছরের এই B.Sc কোর্সে ।

 

একজন software Engineer  এর কর্মক্ষেত্রঃ

Software Firm এঃ একজন Software Engineering  পড়ার পরে বিভিন্ন software firm এ নিম্ন উক্ত পদে চাকরি করার সুযোগ পাবে যদি সে দক্ষ হয়,

১. Requirement এনালাইটিস্ট হিসেবে ।

২. প্রজেক্ট ম্যানেজার হিসেবে ।

৩. ডেভেলপার হিসেবে ।

৪. Software Tester  হিসেবেও চাকরি করতে পারবে ।

আমরা যদি উপরোক্ত পদসমূহের বেতন কাঠামো যদি গুগুলে সার্চ দেই তবে সহজে দেখতে পারব কত হাই স্কেলের বেতন ।

 

বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের আইটি সেক্টরেঃ একজন software Engineering করে software firm গুলোর পাশাপাশি বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের আইটি সেক্টরেও কাজ করার সুযোগ পাবে ।

ফ্রীল্যান্সিং জবঃ বর্তমানে সবচেয়ে আলোচিত পেশা ফ্রীল্যান্সিং করেও একজন দক্ষ software Engineer অর্থ উপার্জন করতে পারবে । অনলাইনের বিভিন্ন মার্কেট প্লেস (Odesk, Freelancer, Elance) এর কাজগুলো সার্চ করলেই দেখা যাবে, কত কাজ পড়ে আছে অনলাইনে । শুধু এখন প্রয়োজন দক্ষ ব্যক্তির ।

তাই, আপনি যদি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে আগ্রহী থাকেন, তবে Software Engineering বিষয়টি আপনার পছন্দের তালিকাতে রাখতে ভুলবেন না ।

ইনশাআল্লাহ পরবর্তি পোস্টগুলোতে আপনারদেরকে Software Engineering এর বিভিন্ন কোর্স সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব ।aiubDaffodil-International-University1

পোষ্টটি লিখেছেন: হুসাইন সাদ্দাম

হুসাইন সাদ্দাম এই ব্লগে 24 টি পোষ্ট লিখেছেন .

5 comments

  1. অনেক তথ্যবহুল হয়েছে লেখাটি। একেবারে প্রফেশনাল ব্লগার এর মত 🙂

  2. হুসাইন সাদ্দাম

    ধন্যবাদ, আপনাকে 🙂

  3. মানবিক শাখা থেকে কি এ কোর্স করা সম্ভব?

    • হুসাইন সাদ্দাম

      না ভাই B.Sc করতে পারবেন না । তবে কিছু কিছু বিষয়ের উপর আলাদা ভাবে ডিপ্লোমা কোন কোন প্রতিষ্ঠান প্রোভাইড করে থাকে ।

  4. ভাই আমি সফটওয়্যারে BSC করার জন্য বাইরের কোনো এক country তে যেতে চাচ্ছি…তাই কোন country তে গেলে ভালো হবে আপনার মতামত চাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *